Header Ads

  • সর্বশেষ আপডেট

    তসলিমা নাসরিনকে চ্যালেঞ্জ, আসুন সাহস থাকলে !!!


    তসলিমা নাসরিনকে চ্যালেঞ্জ দিলাম , আসুন সাহস থাকলে !!!

    ভারতের প্রখ্যাত শিল্পী এ আর রহমানের মেয়ের পরনে বোরকা পড়া দেখে তসলিমা নাসরিন বিরক্তি প্রকাশ করে লিখেছেন " খাতিজার বোরকা পড়া দেখে দম বন্ধ হয়ে আসে “.

    উল্লেখ্য, কয়েকদিন আগে পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ ধনী ভারতের ধনকুবের মুকেশ আম্বানির বাড়িতে একটি অনুষ্ঠানে যোগ দিতে আসেন হিন্দু থেকে মুসলিম ধর্মে ধর্মান্তরিত হয়ে আসা পৃথিবীর বিখ্যাত মিউজিশিয়ান এ আর রহমান ও তার পরিবারের সদস্যরা .

    সেখানে তার মেয়ে খাতিজা আসেন শতভাগ মুসলিম শরিয়তি পোষাকে . হাত থেকে শুরু করে পা পর্যন্ত পুরোটাই ঢাকনায় আবৃত. শুধুমাত্র চোখের অংশটুকু ছিলো খোলা .

    শালীন পোশাকেই আম্বানি পরিবারের সদস্যরা তার সাথে ছবিও তুলেন হাসি মুখে .

    যা দেখে মুসলিম ধর্ম থেকে বেরিয়ে যাওয়া সাবেক মুসলিম নারী ও তথাকথিত নারীবাদী, মুসলিম বিদ্বেষী , চটি গল্প লেখিকা তসলিমা নাসরিনের গাত্র দাহ শুরু হয়েছে .

    তার নাকি দম বন্ধ আসার মতো অনুভূতি হয়েছে .

    এই ভন্ড নারী নিজেকে আধুনিক মনা নারী ও নাস্তিক হিসেবে দাবী করে .

    যা সম্পূর্ণ ভণ্ডামি আর সরাসরি মুসলিম বিদ্বেষ ছাড়া আর কিছুই নয় .

    আমি সবার উদ্দেশ্যে বলতে চাই পাশাপাশি চ্যালেঞ্জ রাখতে চাই তসলিমা পন্থীদের প্রতি . এই বলে যে , তসলিমা নাসরিন কোনো ভাবেই সঠিক নাস্তিকবাদী নন . সে শুধুই মুসলিম বিদ্বেষী নারী .

    সে যদি ধর্ম বিদ্বেষী হতো তাহলে হিন্দু ধর্মের বিরুদ্ধেও কথা বলতো . তাকে কখনো দেখা যায়নি অন্য কোনো ধর্মের সমালোচনা করতে . তাকে চ্যালেঞ্জ দিচ্ছি যেহেতু হিন্দুস্থানে আছে সে .

    উত্তর প্রদেশের মুখ্য মন্ত্রী আদিত্যনাথের বিরুদ্ধে কথা বলুক সাহস থাকলে . যে আদিত্যনাথ হিন্দু ধর্মের দোহাই দিয়ে অনাচার আর মানুষ হত্যা করে চলেছে . দেখি তসলিমার কলিজায় সাহস কেমন আছে .

    কারো পোশাক নিয়ে কটূক্তি করা সাংবিধানিক ভাবে অন্যায় ও অপরাধ . তসলিমা যেমন নেংটা হয়ে ঘুরলেও কেউ কিছু বলতে পারবেনা . তেমনি অন্য কেউ বোরকা পড়ে হাঁটলেও তাকে কিছু বলা যাবেনা, দুটোই সাংবিধানিক অধিকার .

    তবে অসামাজিক সবকিছুই সভ্য সমাজে মানা যায়না .

    তসলিমা নাসরিনকে বলবো , ভণ্ডামি ছাড়েন . মুসলমানরাই আপনাকে বিখ্যাত বানিয়েছে . নিজেকে ইচ্ছাকৃত বিতর্কিত করে অনেকদিনতো ঘুরে ফিরে খেলেন . এবার থামেন . আপনার অন্দরে সব ফাঁকা . এখন আর আগের মতো মৌমাছি পাবেন না . নষ্ট জিনিসের প্রতি কারো লোভ নেই .

    এ আর রহমানের মেয়ের কাছে লাখো মানুষ যাবার জন্য দাঁড়িয়ে যাবে . আপনার কাছে শুধুমাত্র মানসিক রোগাক্রান্ত কিছু বোধহীন মানুষ ছাড়া কেউ যাবেনা .

    এই সভ্য সমাজে আর দুর্গন্ধ ছড়াবেন না প্লিজ .

    সাইফুর সাগর
    সাংবাদিক

    Post Top Ad

    Post Bottom Ad